চট্টগ্রাম ব্যুরো: রাজধানীর ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর কার্যালয়ে হামলার প্রতিবাদে চট্টগ্রাম নগরীর বিভিন্নস্থানে মিছিল-সমাবেশ করেছে ছাত্রলীগ। এতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে ছাত্রলীগ নেতারা বলেছেন, এখনও সময় আছে। সময় থাকতে ঘরে ফিরে যান। দেশে আর কোনো নৈরাজ্য, সহিংসতা চাই না।

হামলার খবর ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে শনিবার (৪ আগস্ট) বিকেলে নগরীর ও আর নিজাম রোড থেকে মিছিল বের করেন ওমরগণি এমইএস কলেজ ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। মিছিল নিয়ে বিভিন্ন সড়ক ঘুরে জিইসি মোড়ে এসে সমাবেশ করে ছাত্রলীগ।

সমাবেশে ওমরগণি এম ই এস কলেজ ছাত্র সংসদের ভিপি ও নগর যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য ওয়াসিম উদ্দিন চৌধুরী সভাপতিত্ব করেন।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন নগর ছাত্রলীগের সহসভাপতি সৌমেন বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য রাজেশ বড়ুয়া, যুবলীগ নেতা রেজাউল করিম মামুন, নগর ছাত্রলীগ নেতা মোহাম্মদ বিন ফয়সাল, মোস্তফা কামাল, আমিনুল ইসলাম রাসেল।

একইসময় চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীরের নেতৃত্বে আরেকটি মিছিল জিইসি মোড় থেকে নাছিরাবাদ হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

মিছিল শেষে জিইসি মোড়ে প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আরশাদুল আলম বাচ্চু, হাবিবুর রহমান তারেক, ইলিয়াছ উদ্দিন ও তোসাদ্দেক নূর চৌধুরী, নগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীর, সাংগঠনিক সম্পাদক খোরশেদুল আলম মানিক, প্রচার সম্পাদক এম এ হালিম সিকদার এবং পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক আকতার হোসেন সৌরভ।

এদিকে দলীয় সভানেত্রীর কার্যালয়ে হামলার প্রতিবাদে মিছিল-সমাবেশ করেছে সরকারি সিটি কলেজ ছাত্রলীগ ও ছাত্রসংসদ। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ছাত্রসংসদের ভিপি রাজীব হাসান রাজন।

বক্তব্য রাখেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা শওকত হোসেন, মো. সালাউদ্দিন, মহিউদ্দিন শাহ, গিয়াস উদ্দিন তালুকদার, ইমাম হোসেন মিল্লাদ, নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য ইরফানুল আলম জিকু, সহসভাপতি তালেব আলী, আ ফ ম সাইফুদ্দিন, নোমান চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুজন বর্মণ, সাংগঠনিক সম্পাদক শওকত আলী রনি

এসব সমাবেশে বক্তারা বলেন, দাবি মেনে নেওয়ার পরও জননেত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে হামলা করে গণতন্ত্রের ওপর আঘাত করা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক আন্দোলনে ছাত্রলীগ পাশে ছিল। নেত্রী দাবি মেনে নিয়েছেন। তবুও তারা সহিংসতায় লিপ্ত হয়ে দেশের গণতন্ত্রকে রুদ্ধ করছেন।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে ছাত্রলীগ নেতারা বলেন, এখনও সময় আছে। সময় থাকতে ঘরে ফিরে যান। দেশে আর কোনো নৈরাজ্য, সহিংসতা চাইনা।