কক্সবাজারে আশ্রিত রোহিঙ্গারা সেখানকার ৫ হাজার একর বন উজাড় করেছে বলে জানিয়েছেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ। বুধবার (২৫ জুলাই) মন্ত্রী পরিষদ সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসক (ডিসি)’দের সঙ্গে এক বৈঠকের পর তিনি এ কথা বলেন।

এসময় মন্ত্রী বলেন, ডিসিদের সঙ্গে বন ও পরিবেশের সার্বিক বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। কক্সবাজারে রোহিঙ্গারা ব্যাপক হারে বন উজাড় করছে বলে অভিযোগ করেছেন তারা। এরইমধ্যে রোহিঙ্গারা প্রায় ৫ হাজার একর বন উজাড় করে ফেলেছে। জ্বালানীর জন্য ওরা নির্বিচারে বনের গাছপালা কেটে ফেলছে।

তিনি বলেন, যেহেতু রোহিঙ্গাদের আমরা আশ্রয় দিয়েছি সেহেতু ক্ষতি কিছুটা মেনে নিতেই হবে। তবে আমরা তাদের রান্নার জ্বালানী হিসেবে কয়লা দেওয়ার চিন্তা করছি। এর আগে তাদের সিলিন্ডার দেওয়ার কথা ভাবা হলেও, বড় ধরণের দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কায় তা বাদ দেওয়া হয়।

চলতি বর্ষা মৌসুমে পাহাড় ধসের আশঙ্কা বেড়ে যাওয়ায় এসময় লোকজনকে সাবধানে থাকতে বলেন তিনি। পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী জানান, পাহাড়ে গাছ কেটে জুম চাষ করা হচ্ছে। এতে করে মাটি দুর্বল হয়ে পড়ছে এবং ধসের ঘটনা ঘটছে। সমস্যা নিরসনে এসব অঞ্চলের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, নদী ও বনভূমি দখলমুক্ত রাখা একটি চলমান প্রক্রিয়া। আমরা উচ্ছেদ অভিযান চালাই। কিন্তু কোনো না কোনোভাবে সেগুলো আবার দখল হয়ে যায়। তবে একসময় এই অবস্থা আর থাকবে না। সব ঠিক হয়ে যাবে।